Uncategorized

কীভাবে ড্রাইভিংয়ে দক্ষতা বাড়াবেন?

কীভাবে ড্রাইভিংয়ে দক্ষতা বাড়াবেন?

গাড়ি চালানোর জন্য দক্ষতা অর্জন করা বাধ্যতামূলক। আপনি যতবেশি ড্রাইভিং প্র‍্যাকটিস করবেন, তত বেশি আপনার দক্ষতা বাড়বে। আপনি ড্রাইভ করার সময়, আপনার হাতের উপর নির্ভর করবে, গাড়ির সকল যাত্রীদের জীবন। তাই অবশ্যই অবশ্যই, যথেষ্ট দক্ষ হয়ে উঠার পর, যাত্রীদের নিয়ে ড্রাইভিং করা উচিৎ।  দক্ষতা বাড়নোর জন্য অন্যতম প্রয়োজনীয় হলো, গাড়ি চালানোর নিয়মকানুন এবং ট্রাফিক আইন সম্পর্কে ভালোভাবে জানা। আমরা যারা নিয়মিত ড্রাইভিং করে থাকি, তারা কিছু পদ্ধতি অনুসরণ করে ড্রাইভিং স্কিল আরেও একটু বাড়াতে পারি। এ-সম্পর্কেই আমরা বিস্তারিত আলোচনা করবো

১-ট্র্যাফিক আইন মেনে চলুন  

ট্র্যাফিক আইন মেনে চলা সকলের জন্যই বাধ্যতামূলক। তাই সবসময়ই আমাদের ট্রাফিক আইন মেনে চলে উচিত। আপনি যখন গাড়ি চালান, তখন আরও বেশি ভালভাবে তা মেনে চলা উচিত। এতে অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা কমে যায়। তাছাড়া, গাড়ি চালানোর সময় যদি ট্র্যাফিক পুলিশ গাড়ি থামানোর ইঙ্গিত দেয়, তখন আপনাকে অবশ্যই গাড়ি থামাতে হবে। তারা গাড়ির কাগজপত্র দেখতে চাইলে দেখাতে হবে। গাড়ির প্রয়োজনীয় কাগজপত্রগুলোও ঠিকঠাক রাখতে হবে সবসময়।  তাদের সাথে ভালো আচরণ করতে হবে। এছাড়াও আপনাকে ট্র্যাফিক নিয়মগুলো ভালভাবে জানতে হবে। হলুদ সিগনাল দেখলেই থেমে যাওয়ার চেষ্টা করবেন। কারণ, রেড লাইট আসার সাথে সাথেই থামা বাধ্যতামূলক। এইক্ষেত্রে দেরী করলে জরিমানা ও হতে পারে।

২- গাড়ির গতি নিয়ন্ত্রণে  রাখুন   

গাড়ি চালানোর সময় সবসময়ই সতর্ক হয়ে চারিদিকে  খেয়াল রাখতে হবে। গাড়ির স্পিড নিয়ন্ত্রণে রেখে মনোযোগী হয়ে গাড়ি চালাতে হবে। কারণ স্পীড নিয়ন্ত্রণে না রাখতে পারলে, অনাকাঙ্ক্ষিত দুর্ঘটনা ঘটে যেতে পারে। বাংলাদেশের আইন অনুসারে হাইওয়েতে সর্বোচ্চ গতিসীমা ৮০ কিলোমিটার। এই ৮০ কিলোমিটার গতিসীমা মেনে চলুন। এছাড়াও শহরের রাস্তাগুলোতে রাস্তার পাশে গতিসীমা লিখা থাকে, সেই গতিসীমা সর্বদা মেনে চলুন। কারণ, গতিসীমা অতিক্রম করলে দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা থাকে।

৩-  ফোকাস ঠিক রাখুন   

সবসময় আপনার আশেপাশে সবদিক খেয়াল করে মনোযোগের সাথে গাড়ি চালাতে হবে। গাড়ির আয়নাগুলোর দিকে বিশেষ নজর রাখতে হবে। দুইপাশের দুটি এবং মাঝখানে একটি, মোট ৩টি আয়নার দিকে সর্বোদা খেয়াল রাখতে হবে। হাইওয়ের বাজার এলাকা এবং শহরের আবাসিক এলাকাগুলোতে মানুষজন হুটহাট করে রাস্তায় চলে আসতে পারে। সেইসব ক্ষেত্রে আপনার ফোকাস ভালো থাকলে দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা থাকে না। সেজন্যই সবসময়ই ফোকাস  ঠিক রেখে সচেতনভাবে ড্রাইভিং করতে হবে। সবক্ষেত্রে দৃষ্টি রেখে নিরাপদে ড্রাইভিং করার চেষ্টা করতে হবে। গাড়ি চালানোর সময়, মনযোগ  হারানো যাবে না। এছাড়াও আপনাকে, অন্য গাড়ির ড্রাইভাররা কি করতে যাচ্ছে, সেটা খেয়াল রাখতে হবে। আশপাশের সবকিছু বুঝে দক্ষতার সাথে সুন্দরভাবে গাড়ি চালানোই একজন দক্ষ ড্রাইভারের বৈশিষ্ট্য

৪- অন্য গাড়িকে সাইড দিন  

গাড়ি চালানোর সময় অন্য গাড়িকে ওভারটেক করতে দেয়ার সুযোগ দেয়া উচিত। যদিও সে যদি স্পিড লিমিটের চেয়েও বেশি গতিতে গাড়ি চালায়, তাও তাকে ওভারটেক করার সুযোগ দিন। কারণ, তাকে সাইড না দিলে সে হর্ণ দিয়ে বিরক্ত করবে এবং দুর্ঘটনা ঘটার ও সম্ভাবনা থাকে। কেও ওভারটেক করতে আসলে কখনোই তার সাথে তাল মিলিয়ে গাড়ির গতি বাড়াবেন না অবশ্যই অবশ্যই সাইড দিয়ে সামনে যাওয়ার সুযোগ করে দিবেন। এছাড়াও সঠিক সময়ে সঠিক ইন্ডিকেটর  ব্যবহার করতে হবে। এর ফলে, অন্য ড্রাইভারেরা সতর্ক হতে পারবে এবং আপনি কোনদিকে যাবেন, তা বুঝতে পারবে এবং সেই অনুযায়ী সে সতর্ক হতে পারবে।

Back to list

Leave a Reply