Uncategorized

নতুন গাড়ি কেনার ক্ষেত্রে কিছু মূল্যবান পরামর্শ

সর্বপ্রথম আপনি বাজেট নির্ধারণ করুন। বাজেটের বাইরে গাড়ির রেজিষ্ট্রেশন খরচ আলাদা করে রাখবেন। তারপর আপনার বাজেট অনুযায়ী বাজারে কোন কোন গাড়ি পাওয়া যাচ্ছে, আপনি গাড়ি কোন কোন কাজে ব্যবহার করবেন এইসব বিবেচনা করবেন। যেমন মনেকরেন, আপনার পরিবারে মানুষ সংখ্যা ৭জন। এইক্ষেত্রে আপনাকে এমপিভি গাড়ি কিনতে হবে। সেডান কিনলে তো হবে না।

সৌন্দর্যের চেয়ে প্রয়োজনকে বেশি প্রাধান্য দিন। আপনি কোন কোন রাস্তায় গাড়ি চালাবেন, তা যাচাই করুন। যেমন আপনার যদি মাঝেমধ্যে গ্রামের ভাঙ্গা রাস্তা অথবা গাড়ি নিয়ে কাঁচা রাস্তা পার করতে হয়,  সেইক্ষেত্রে আপনাকে গ্রাউন্ড ক্লিয়ারেন্স বেশি, এমন গাড়ি নিতে হবে। আপনি না জেনে সৌন্দর্যকে প্রাধান্য দিয়ে বডিকিট লাগানো গাড়ি কিনলেন, কিন্তু কেনার পর সেই গাড়ি নিয়ে গ্রামের কাঁচা রাস্তায় আটকা পড়লেন, সেইক্ষেত্রে ভোগান্তি আপনারই হবে। সবগাড়ি সবক্ষেত্রে ভালো হয় না। তাই, আপনার  প্রয়োজনকে বেশি প্রাধান্য দিন।

এরপর আসি, গাড়ির প্যাকেজ সম্পর্কে। আপনি যদি ড্রাইভার দিয়ে গাড়ি চলান, সেইক্ষেত্রে হাই প্যাকেজের গাড়ি কেনার চাইতে লো প্যাকেজ এর গাড়ি কেনাই আপনার জন্য বুদ্ধিমানের কাজ  হবে। আর যদি নিজে ড্রাইভ করে থাকেন, তাহলে বাজেট থাকলে অবশ্যই অবশ্যই হাই প্যাকেজ এর গাড়ি নেয়ার চেষ্টা করবেন।

এইবার আসি রঙের ব্যাপারে। গাড়ির রঙের কারণে কিন্তু গাড়ি দামের বেশ তফাৎ হয়ে থাকে। আপনি যদি কালো, রেডওয়াই, পার্পেল, মিকা ব্লু, মেরুন এই টাইপের রঙের গাড়ি নিতে চান সেইক্ষেত্রে  সাদা, পার্ল, সিলভার এই ৩টা রঙের কোনও গাড়ির চাইতে প্রায় ১-২ লক্ষ টাকা দাম বেশি হবে শুধুমাত্র রঙের কারণে।

কোনগাড়ি কিনবেন, তা নির্ধারিত হলে নিজে সেই গাড়ি সম্পর্কে একটু জানার চেষ্টা করুন। অকশন শিট, গাড়ির ভালো-মন্দ দিকগুলো, এক প্যাকেজের সাথে অন্য প্যাকেজ এর কি কি পার্থক্য থাকে, কি কি কারণে গাড়ির দাম কম-বেশি হতে পারে এইসব সম্পর্কে জানার চেষ্টা করুন। শূন্য ধারণা নিয়ে কখনোই গাড়ি কিনতে যাবেন না

গাড়ি কেনার আগে অনেকগুলা শোরুম যাচাই-বাছাই করুন। একটা শোরুম এ গিয়ে কখনোই গাড়ি কিনে ফেলবেন না। অনেকগুলা শো-রুম ঘুরলে আপনার গাড়ি সম্পর্কে ধারণা বাড়বে। দামের তফাৎগুলো বুঝতে পারবেন। একটা প্যাকেজ এর গাড়ির সাথে আরেকটা প্যাকেজের মধ্যে কি কি পার্থক্য আছে, সেইসব ভালো করে বুঝতে পারবেন। আর অবশ্যই একজন এক্সপার্ট সাথে নিয়ে গাড়ি কিনতে যাবেন। এক্সপার্ট বলতে গাড়ি সম্পর্কে ভালো বুঝে এমন কোনও শিক্ষিত মানুষ। কোনও ড্রাইভার অথবা মেকানিক সাথে নিয়ে কখনোই নতুন গাড়ি কিনতে যাবেন না। সম্ভব হলে প্রি-অর্ডারে গাড়ি নেয়ার চেষ্টা করবেন। প্রি-অর্ডারে গাড়ি কিনলে দাম একটু কম হয় আর নিজের পছন্দমতো গাড়ি বাছাই করে কেনা যায়। প্রিঅর্ডার করলে মাসখানেক সময় লাগে গাড়ি ডেলিভারি পাইতে।

গাড়ি পছন্দ হলে, বুকিং কনফার্ম করার আগে অকশন শিট নিজে একবার ভ্যারিফাই করে নেবেন। ১০ ডলার খরচ হয় এতে।

ধন্যবাদ

Back to list

Leave a Reply